Home bd news নারায়ণগঞ্জে ঊর্ধ্বমুখী ডালের দাম

নারায়ণগঞ্জে ঊর্ধ্বমুখী ডালের দাম

Staff reporter (s)

Published: 12:16:01
83
0

image_pdfimage_print
কর্পোরেট সংবাদ ডেস্কঃ নারায়ণগঞ্জের নিতাইগঞ্জে মোটা মসুর ছাড়া বাকি সব ধরনের ডালের দাম ঊর্ধ্বমুখী। এক সপ্তাহের ব্যবধানে এসব পণ্যের দাম কেজিতে ২ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। ব্যবসায়ীরা বলছেন, সরবরাহ কমায় বাজারে ডালের দাম বেড়েছে।
নিতাইগঞ্জ ঘুরে দেখা যায়, বর্তমানে দেশী মসুর ডাল বেচাকেনা হচ্ছে প্রতি কেজি ৭৬ টাকায়। এক সপ্তাহ আগে একই ডাল বেচাকেনা হয়েছিল ৭৮ টাকায়। সে হিসাবে দেশী মসুর ডালের দাম কেজিতে বেড়েছে ২ টাকা। বাজারে দিল্লি সুপার ডাল বেচাকেনা হচ্ছে কেজিপ্রতি ৮৫ টাকায়। গত সপ্তাহে একই ডাল বেচাকেনা হয়েছিল ৮৪ টাকায়। এখন মোটা মসুর ডাল বেচাকেনা হচ্ছে প্রতি কেজি ৫২ টাকায়। পণ্যটির দামে কোনো পরিবর্তন হয়নি। এক মাস ধরে এ ডাল একই দামে বেচাকেনা হয়ে আসছে। বর্তমানে খেসারি ডাল বেচাকেনা হচ্ছে কেজিপ্রতি ৩৩ টাকায়।

গত মাসের শেষের দিকে একই ডাল বেচাকেনা হয়েছিল ৩৪ টাকায়। বাজারে বুটের ডাল বেচাকেনা হচ্ছে কেজিপ্রতি ৬৬ টাকা ৫০ পয়সায়। একই ডাল এক সপ্তাহ আগে বেচাকেনা হয়েছিল ৬৬ টাকায়। বর্তমানে মুগডাল বেচাকেনা হচ্ছে কেজিপ্রতি ১২৮ টাকায়। গত সপ্তাহে একই ডাল বেচাকেনা হয়েছিল ১২৬ টাকায়। বাজারে অ্যাংকর ডাল বেচাকেনা হচ্ছে প্রতি কেজি ২৮ টাকা ৬০ পয়সায়, এক সপ্তাহ আগে যা বেচাকেনা হয়েছিল ২৮ টাকায়। এখন ডাবলি ডাল বেচাকেনা হচ্ছে কেজিপ্রতি ২৯ টাকায়। চলতি মাসের মাঝামাঝিতে এ ডাল বেচাকেনা হয়েছে ২৮ টাকায়। সে হিসেবে এ ডালের দাম বেড়েছে কেজিতে ১ টাকা।

নিতাইগঞ্জের বাসন্তী ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী বিপ্লব সাহা জানান, বাজারে ডালের বেচাকেনায় মন্দা চলছে। আবার এদিকে পুরনো ডালের সরবরাহ শেষ পর্যায়ে। এ কারণে সরবরাহ সংকটে দাম কিছুটা বেড়েছে। তিনি বলেন, রোজাকে সামনে রেখে নতুন পণ্য বাজারে আসবে। তখন বেচাকেনাও বাড়তে পারে।

জাকির এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী জাকির হোসেন জানান, নিতাইগঞ্জের দেশী মসুরসহ সব ডালের দাম ঊর্ধ্বমুখী। কোনো কোনোটির দাম কেজিতে ২ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। তবে দাম বাড়লেও বাজারে বেচাকেনায় মন্দাভাব বিরাজ করছে। পণ্য পরিবহনে সমস্যার কারণে মফস্বলের ক্রেতারা কম আসছেন।

গোবিন্দ ভাণ্ডারের মালিক গোবিন্দ সাহা জানান, নিতাইগঞ্জ থেকে গাজীপুর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, নরসিংদী, মুন্সীগঞ্জ, কুমিল্লাসহ আশপাশের জেলার খুচরা বিক্রেতারা ডাল কিনতে আসেন। তবে বেচাকেনা কম। দিনের বেলায় পণ্য লোড-আনলোড বন্ধ থাকায় মফস্বলের ক্রেতারা আগের মতো নিতাইগঞ্জে আসছেন না। নিতাইগঞ্জ ডাল মিল মালিক সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট সুলতান উদ্দিন নান্নু জানান, বেশ কয়েক মাস ধরেই ডালের বাজারে মন্দা চলছে। এক সপ্তাহে দাম কেজিতে ১ টাকা বাড়লে পরের সপ্তাহে ২ টাকা কমে যায়।

Print Friendly, PDF & Email

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.