Home bd news ছুটির দিনে বাণিজ্যমেলায় জনস্রোত

ছুটির দিনে বাণিজ্যমেলায় জনস্রোত

mela
Staff Reporter

Published: 11:11:56
49
0

image_pdfimage_print

ডেক্স রিপোর্ট: দেশে রাজনৈতিক অস্থিরতা নেই। নেই কোনো শঙ্কা। তাই গতকাল সাপ্তাহিক ছুটির দিনে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলায় ফিরেছে পুরনো প্রাণ। রাজধানীর বেশিরভাগ অঞ্চলের জনস্রোতই ছিল মেলামুখী। ক্রেতা-দর্শনার্থীদের ভিড়ে ঠাসা ছিল মেলাপ্রাঙ্গণ। প্রবল জনস্রোতের কারণে সৃষ্টি হয় ব্যাপক যানজট, আর সেখান থেকে জনভোগান্তি। স্টল ও প্যাভিলিয়নের বিক্রয়কর্মীদেরও ভিড় সামাল দিতে হিমশিম খেতে হয়। তবে আশার কথা, মেলায় যেমন বেড়েছে বিক্রি, তেমনই পণ্যের প্রচার। কর্মীরাও খুব খুশি।

ব্যবসায়ীরা জানান, মেলা শুরুর পর থেকেই তীব্র শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যায়। এতে চারটি সাপ্তাহিক ছুটির দিন গেলেও আশানুযায়ী মেলা তেমনটা জমেনি। গতকাল শীতের মাত্রা যেমন কম ছিল, তেমনি আকাশ ছিল রৌদ্রোজ্জ্বল। ফলে অনেকেই মেলামুখী হয়েছেন। দুপুরের পর থেকেই মানুষের স্রোত বাড়তে থাকে। সকাল দিকেও প্রচুর ভিড় ছিল।

মাঠ ইজারাদার মীর শহিদুল আলম আমাদের সময়কে বলেন, বলা যায়, মেলা এখন শেষের দিকে। অতীত ইতিহাস বলে, মেলার তৃতীয় শুক্রবারই ব্যাপক লোকসমাগম হয়। এবারও তা-ই হয়েছে। আজ (গতকাল) দর্শনার্থীর সংখ্যা ৩ লাখ ছাড়িয়েছে। এ কারণে মেলার চারপাশের রাস্তাগুলোয় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। মেলাপ্রাঙ্গণ, চন্দ্রিমা উদ্যান, আগারগাঁও, শ্যামলী, আসাদগেট এলাকায় সেই যানজট ছড়িয়ে পড়ে।

এদিকে মেলার শেষদিকে বাড়তি ছাড়ও দিচ্ছে নানা প্রতিষ্ঠান। কয়েক দিন আগে যেসব ব্লেজার ও স্যুট দেড় হাজার থেকে ১ হাজার ৮০০ টাকায় বিক্রি হয়েছে; সেগুলো এখন ১ হাজার ২০০ থেকে ১ হাজার ৪০০ টাকায় মিলছে। এ ছাড়া পূর্বে কোনো ছাড়া না থাকলেও বর্তমানে পণ্যভেদে ৬০ শতাংশ পর্যন্ত মূল্যছাড় দিচ্ছে ‘ওকোড’ ব্র্যান্ড।

তবে এবারের মেলায় গৃহস্থালি পণ্যের প্রতিই ক্রেতাদের বেশি আগ্রহ। প্লাস্টিকের পাশাপাশি আগ্রহ রয়েছে প্রেশার কুকার, জুস মেকার, জুস ব্লেন্ডার, ওভেন, রাইস কুকার, ইস্ত্রি, ইনডাকশন চুলা, ফ্যানসহ নানা ধরনের ইলেকট্রনিক ও ইলেকট্রিক পণ্যেও। বিভিন্ন মূল্যহ্রাস ও প্যাকেজ আকারে পাওয়া যাওয়ায় বিক্রিও বেশ ভালো হচ্ছে বলে জানান বিক্রেতারা। ফার্নিচারও ভালো চলছে। মোবাইল ফোন সেটের স্টলগুলোয়ও বেশ ভিড়। তরুণ প্রজন্ম নতুন নতুন প্রযুক্তির মোবাইল সেট যেমন দেখছে, তেমনি সাধ্যমতো কিনে নিচ্ছে।

বিদেশি স্টলগুলোয়ও বেশ ভিড়। বাহারি নকশা ও ভিন্নধর্মী পণ্যের মধ্যে কার্পেট, কসমেটিক্স, চাদর, থ্রিপিস, অলংকারের প্রতিই বেশি আকর্ষণ। প্রাণের প্যাভিলিয়ন ইনচার্জ জিয়াউল হক আমাদের সময়কে বলেন প্রথম দিকে মেলা না জমলেও গতকাল ছুটির দিনে বেশ জমেছে, বিক্রিও বেড়েছে। প্রচারও হচ্ছে।

Print Friendly, PDF & Email