30 C
Dhaka
অগাস্ট ১২, ২০২০
Latest BD News – Corporate Sangbad | Online Bangla NewsPaper BD
শেয়ার বাজার

বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকীর আগেই পুঁজিবাজার স্থিতিশীল করার দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক : পুঁজিবাজারে ভয়াবহ পতনে ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীরা আবারো বিক্ষোভ করেছেন। বিক্ষোভে বিনিয়োগকারীরা বিভিন্ন ধরনের স্লোগান দিচ্ছেন। এরই ধারাবাহিকতায় বিনিয়োগকারীরা আগামী ১৭ মার্চ, জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর আগেই পুঁজিবাজারকে স্বাভাবিক করার দাবি জানান।

বিনিয়োগকারীরা বলেন, আগামী ১৭ মার্চ, পুরোজাতি আনন্দের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন করবেন। অন্যদের মত ক্ষতিগ্রস্থ বিনিয়োগকারীরাও আনন্দের সঙ্গে, হাসিমুখে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন করতে চান। বিনিয়োগকারীদের যাতে সেদিন ভারাক্রান্ত  হৃদয়ে চোখে কান্না নিয়ে অংশ গ্রহন করতে না হয় সেই জন্য এর আগেই বাজারকে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে দেওয়ার দাবি জানান।

মঙ্গলবার দুপুরে মতিঝিলের ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সামনে বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদ এ বিক্ষোভের আয়োজন করে। সংগঠনের সদস্যরা এ সময় নানা শ্লোগানে মুখরিত হয়ে উঠেন।

এসব শ্লোগানের মধ্যে ছিল-শেয়ারবাজার ঠিক কর নইলে, বুকে গুলি কর, শেয়ারবাজার পড়ল কেন, খায়রুল তুই জবাব দে; সেল বাই বন্ধ কর, করতে হবে; আমার টাকা আমার টাকা, ফিরিয়ে দাও ফিরিয়ে দাও ইত্যাদি।

বিক্ষোভ সমাবেশে বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদের সভাপতি মিজানুর রহমান চৌধুরী বলেন, গত ১০ বছরে ৯৫ টি বস্তাপঁচা কোম্পানি মার্কেটে যুক্ত করা হয়েছে। নিজেদের স্বার্থ হাসিল করে বহু টাকা লুটে নিয়েছে। তাদেরকে দ্রুত বিচারের আওতায় আনার দাবি জানান তিনি। আজকের বিক্ষোভের পর মিছিল করার ইচ্ছা থাকলেও প্রশাসনের চাপে আমরা তা করতে পারিনি।

আগামীকাল বুধবার আবারও বিক্ষোভের প্রদর্শনের ঘোষণা দেন তিনি।

সংগঠনের সিনিয়র সহ-সভাপতি নজরুল ইসলাম বলেন, পুঁজিবাজারের বিনিয়োগকারীদের অবস্থা খুবই নাজুক। তাদের পুঁজি কমতে কমতে তলানিতে এসে নেমেছে।

এ বাজার রক্ষায় বাংলাদেশ সিকিউরিটি এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি), ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ, ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (আইসিবি) সহ সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোকে জবাবদিহিতার আওতায় আনার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ জানান বিনিয়োগকারীরা।

উল্লেখ, দীর্ঘদিন ধরে দরপতনের মধ্যে থাকা পুঁজিবাজারের পরিস্থিতি সম্প্রতি চরম নাজুক হয়ে পড়েছে। নতুন বছরে ১০ কার্যদিবসের মধ্যে ৮ দিনই মূল্যসূচক কমেছে । এই সময়ে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৪১৬ পয়েন্ট বা প্রায় ১০ শতাংশ কমেছে। দরপতনের এই ধাক্কায় ইতোমধ্যে অনেক বিনিয়োগকারী সর্বস্বান্ত হয়ে পড়েছেন, বিশেষ করে যারা মার্জিন ঋণ নিয়ে শেয়ারে বিনিয়োগ করেছিলেন।

কর্পোরেট সংবাদ/টিডি


আরো খবর »

অনুমোদিত মূলধন ৫০০ কোটি টাকা বাড়াবে এসএস স্টিল

Tanvina

লভ্যাংশ ঘোষণা করেনি ৬ মিউচ্যুয়াল ফান্ড

Tanvina

পাওয়ার গ্রিড কোম্পানির রেজিস্টার্ড অফিসের ঠিকানা পরিবর্তন

**