হোম কর্পোরেট সুশাসন বিপদে আছেন শেয়ারবাজারে বিনিয়োগকারীরা, কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি দেয়া প্রয়োজন

বিপদে আছেন শেয়ারবাজারে বিনিয়োগকারীরা, কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি দেয়া প্রয়োজন

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : at 6:26 pm
298
0
বিএসইসি

শেয়ারবাজারে লাগাতার দরপতন ঘটেই চলেছে। গত ২ সপ্তাহ ধরে এই পরিস্থিতি চলছে। এরকম পরিস্থিতিতে সবচে’ বেশি বিপদে পড়েছেন ঋণগ্রস্থ বিনিয়োগকারীরা। যারা মার্চেন্ট ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে শেয়ারে বিনিয়োগ করেছিলেন তাদের সকলের মাথায় হাত পড়েছে। এ অবস্থা আরো কয়েক দিন চললে দেশের পুঁজিবাজার ধ্বংসের মুখোমুখি হতে পারে। তাতে দেশের শিল্প-বাণিজ্য তথা সামগ্রিক অর্থনীতি হুমকির মুখে পড়বে। এই পতন এখুনি ঠেকানো দরকার। এব্যাপারে অর্থমন্ত্রণালয়, কেন্দ্রীয় ব্যাংক ও বিএসইসি যথাযথ ব্যবস্থা নেবে এটাই প্রত্যাশা।

৫ হাজার পয়েন্ট ডিএসইর একটা মনস্তাত্বিক। এখন যদি ভয় পেয়ে সকল বিনিয়োগকারী ৯৬ সালের মত সব শেয়ার বেচে দিতে চায় তাহলে বাজারে কোন ক্রেতা পাওয়া যাবে না। ফল স্বরূপ অনিবার্যভাবে ধ্বংসের মুখে পড়বে শেয়ারবাজার। সেটা মোটেই কাম্য হতে পারে না। সেটা হলে দেশের শিল্প বিকাশ স্তব্ধ হয়ে যাবে। জনগণের সঞ্চিত টাকা শেয়ারবাজারের মাধ্যমে শিল্পে বিনিয়োগ হয়ে শিল্পের বিকাশ ঘটে থাকে। আধুনিক ইউরোপ এভাবেই শিল্পোন্নত হয়েছে। বাংলাদেশ বর্তমানে কৃষি অর্থনীতি থেকে শিল্পে উত্তোরিত হচ্ছে। বাংলাদেশের শিল্প পণ্য বিশ্বের শতাধিক দেশে রফতানি হচ্ছে।

২০২১ সাল নাগাদ বাংলাদেশ মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত হওয়ার স্বপ্ন দেখছে। এসময় যদি পুঁজিবাজার ভেঙে পড়ে তাহলে শিল্পের অগ্রযাত্রা থমকে যাবে। জনগণের সঞ্চিত অর্থ ফটকাবাজদের হাতে চলে যাবে।
এ অবস্থায় সরকারকে দ্রুত শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করতে হবে। চীনের কাছে হংকং হস্তান্তর হলে নব্বই দশকে হংকংয়ের শেয়ার বাজারে ধস নেমেছিল। তখন চীন সরকার বড় বড় চীনা কোম্পানিকে নির্দেশ দিয়েছিল হংকং স্টক এক্সচেঞ্জের বিনিয়োগ করতে। বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার নিয়ে কোম্পানিগুলো শেয়ার কেনা শুরু করেছিল এবং ৩ দিনে বাজার ঘুরে দাঁড়িয়েছিল। বাংলাদেশ সরকার বড় ব্যবসায়ীদের এরকম নির্দেশ দিতে পারে, পাশাপাশি বিটিআরসিসহ কিছু সরকারি কোম্পানির হাতে অনেক টাকা আছে, তারা কিছু বিনিয়োগ করতে পারে, ব্যাংকগুলোর পুঁজিবাজারে বিনিয়োগসীমা বাড়ানো যেতে পারে। এসব করে আপাতত পতন ঠেকাতে হবে। এরপর যে মাফিয়া চক্র বাজার নিয়ন্ত্রণ করছে তাদের শাস্তির আওতায় আনতে হবে। প্রণোদনা দিয়ে বাজার উন্নয়ন সম্ভব নয়, কিন্তু শাস্তি দিয়ে তা সম্ভব হবে।

আরও পড়ুন; বাজেট প্রণোদনায় পুঁজিবাজারে বইতে পারে সুবাতাস