হোম কর্পোরেট সুশাসন একই সাথে “উন্নয়ন ও গণতন্ত্র”

একই সাথে “উন্নয়ন ও গণতন্ত্র”

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : at 12:18 pm
249
0

মাহ্‌মুদুন্নবী জ্যোতি: বাংলাদেশে উন্নয়ন ও গণতন্ত্র একসঙ্গে এগিয়ে নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেই সাথে তৃণমূল পর্যায় থেকে দেশের উন্নয়ন নিশ্চিত করার বিষয়টির প্রতিও গুরুত্ব দিয়েছেন তিনি। জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মার্কেলের একটি শুভেচ্ছা বার্তা প্রধানমন্ত্রীর কাছে পৌঁছে দিতে ঢাকায় নিযুক্ত দেশটির রাষ্ট্রদূত পিটার ফাহরেনহোল্টজ গণভবনে গেলে তিনি এ মন্তব্য করেন।

প্রধানমন্ত্রীর মন্তব্য দু’টিকে অত্যন্ত ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন দেশের সচেতন মহল। কারণ, গণতন্ত্রহীন উন্নয়ন যেমন টেকসই হয় না, তেমনি উন্নয়ন ছাড়া শুধুমাত্র গণতন্ত্র দেশের জন্য কোন মঙ্গল বয়ে আনতে পারে না। দেশের ব্যবসা বান্ধব পরিবেশ নিশ্চিত করা, যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন, শিল্পায়ন, শিক্ষা, অবকাঠামোগত উন্নয়ন সহ নাগরিক কল্যাণকর উন্নয়ন সর্বস্তরের জনগণের কাম্য। আর জনগণের এই প্রত্যাশার সাথে যুক্ত হয়ে আছে তৃণমূল পর্যায়ের উন্নয়ন। কারণ, দেশের অধিকাংশ মানুষ এখনো গ্রামের বাসিন্দা।

এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, বিগত সরকারের মেয়াদে দেশের গ্রামাঞ্চলে রাস্তাঘাটের ব্যাপক দৃশ্যমান উন্নয়ন হয়েছে। বেড়েছে গ্রামীণ জীবনমানের উন্নয়ন। এছাড়াও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জন্য গৃহীত সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী কর্মসূচিগুলো আরো জোরদার করার ঘোষণা দিয়েছে সরকার। এর ফলে গ্রামীণ জীবনমান আরো উন্নত হবে।

গ্রামীণ জীবনের তুলনায় শহুরে জীবনমানের উন্নয়ন নিয়ে রয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। শহরে শিল্পায়ন যেমন বেড়েছে, তেমনি পাল্লা দিয়ে বাড়ছে ট্রাফিক জ্যাম, বায়ু দুষণ। সেই সাথে দ্রব্যমূল্যের উর্দ্ধগতি এখনো নিয়ন্ত্রণ করা যায়নি। এছাড়া বেড়েছে গ্যাস, বিদ্যুৎ বিল সহ শিক্ষার ব্যয়। যার প্রভাব পড়েছে সীমিত আয়ের মানুষের উপর।

প্রধানমন্ত্রী উপলব্ধি করেছেন, উন্নয়নের অগ্রযাত্রাকে ত্বরান্বিত করতে হলে গণতান্ত্রিক পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে। কারণ, গণতান্ত্রিক সুষ্ঠ পরিবেশ ছাড়া উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হয়ে থাকে এবং দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারীরাও বিনিয়োগে অনুৎসাহী হয়ে পড়েন। দেশের স্বার্থে গণতান্ত্রিক সুষ্ঠ পরিবেশ নিশ্চিত করতে সরকারের যেমন দায়িত্ব রয়েছে তেমনি রয়েছে সকল রাজনৈতিক দলের।

দেশের রাস্তা-ঘাট, কালভার্ট তৈরি, মেরামত, রক্ষণাবেক্ষন ও অবকাঠামোত উন্নয়নের সাথে সরকারি দলের নেতাকর্মীদের একটা যোগসূত্র লক্ষ্য করা যায়। স্থানীয় জনগণ অনেক ক্ষেত্রে তাদের কাজের মান নিয়ে প্রশ্ন তুলে থাকেন। বিষয়টির প্রতি নজর দেওয়া আবশ্যক।

বাংলাদেশ বর্তমানে উন্নয়নের মহাসড়কে অবস্থান করছে। উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে মধ্যম আয়ের দেশের প্রথম ধাপ ইতোমধ্যেই অর্জিত হয়েছে। এখন সময়, সামনের দিকে এগিয়ে চলা। আর এজন্য দরকার সরকারের আরো বেশি দুরদর্শিতা এবং দেশ থেকে চিরতরে দুর্নীতি নির্মুল করা।

আরো পড়ুন: পুঁজিবাজার নিয়ে নতুন স্বপ্ন বিনিয়োগকারীদের