হোম খেলাধূলা হ্যাটট্রিক করে বিশ্বরেকর্ড আলিসের

    হ্যাটট্রিক করে বিশ্বরেকর্ড আলিসের

    সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : at 8:16 pm
    133
    0
    হ্যাটট্রিক

    স্পোর্টস ডেস্ক: বাংলাদেশ প্রিমিয়াম লিগের (বিপিএল) ৬ষ্ঠ আসরে আজ রংপুরের বিপক্ষে ১৮৪ রানে রানের পাহাড় দিয়ে ঢাকা ডায়নামাইটস ম্যাচ শুরু করেছিলো। ঠিক সেই ভাবেই বল হাতে নিয়ে আলিস ইসলামের হ্যাটট্রিক মাধ্যমে শ্বাসরুদ্ধ ম্যাচে রংপুরকে ২ রানে হারিয়ে জয় তুলে নিলো সাকিবের ঢাকা। শেষদিকে জয়ের জন্য দরকার ছিল ১৮ বলে ২৬ রান। হাতে ছিল ৬ উইকেট।

    ঠিক তখনই বল হাতে রূদ্রমূর্তি ধারণ করেন অ্যালিস আল ইসলাম। পরপর তিন বলে ফিরিয়ে দেন মিথুন, মাশরাফি ও ফরহাদকে। শেষ পর্যন্ত তার অনবদ্য হ্যাটট্রিকে শ্বাসরূদ্ধকর ম্যাচে ২ রানের দুর্দান্ত জয় তুলে নেয় ঢাকা ডায়নামাইটস।

    Spellbit Limited

    এ ম্যাচেই অভিষেক হয়েছে আলিসের। নিজের অভিষেক ম্যাচেই হ্যাটট্রিক করে দলকে অবিশ্বাস্য জয় উপহার দিলেন তিনি। শুধু জেতাননি, বিশ্বরেকর্ডও গড়েছেন! এর আগে টি-টোয়েন্টিতে অভিষেকে কেউ কখনো হ্যাটট্রিক করেছেন বলে জানা যায়নি। ম্যাচসেরার পুরস্কার উঠেছে তার হাতে।

    ম্যাচ সেরা হয়ে সংবাদ সম্মেলনে আসা আলিসকে তাই প্রথমেই নিজের পরিচয় বৃত্তান্ত দিতে হলো। নামটাও পরিষ্কার করে বলতে হলো, একটু অন্য রকম নাম বলে, ‘আমি আলিস আল ইসলাম। ঢাকা ডায়নামাইটসের নেট বোলার ছিলাম। আগে আমি ঢাকা প্রথম বিভাগে খেলেছি। নেট বোলিং করার সময় সুজন (ঢাকার কোচ খালেদ মাহমুদ) স্যার আমাকে দেখেন। দেখে ওনার বিশ্বাস হয় যে আমি ভালো করতে পারব, তারপর আমাকে টিমে নেন। তার পর টিম ম্যানেজমেন্ট, প্লেয়াররা আমাকে দারুণ সহযোগিতা করেছেন। সেখান থেকেই আজকের একাদশে।’

    একাদশে থাকবেন সেটি গতকালই জেনেছেন। মানসিক প্রস্তুতিটা যেন নিতে পারেন। বলছিলেন, ‘গতকাল সন্ধ্যায় জানতে পারি খেলব। স্যার (খালেদ মাহমুদ) আমাকে ডেকে বলেন শারীরিক ও মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকতে। আমি প্রস্তুতই ছিলাম। এত বড় স্টেডিয়ামে, এত বড় টুর্নামেন্টে প্রথম খেলা নার্ভাস হওয়ার মতোই বিষয়। আমি প্রথমে নার্ভাস ছিলাম, তার পরও ভালো হয়েছে।

    নিজের উঠে আসার গল্পটাও খুব বড় কিছু নয়। সংক্ষেপেই দিলেন উত্তর, ‘আমি ক্রিকেট খেলা শুরু করি কাঁঠাল বাগান গ্রিন ক্রিসেন্ট ক্লাব থেকে। তারপর কয়েক বছর সেকেন্ড ডিভিশন খেলার পর ফাস্ট ডিভিশন খেলি। তারপর এই বিপিএল।’

    বেড়ে ওঠা ঢাকার খুব কাছে, সাভারের বলিয়ারপুরে। আজ সেখানে নিশ্চয়ই আনন্দের বন্যা। নিজের তৃতীয় ওভারে অমন কীর্তির পরও কিন্তু ইনিংসের শেষ ওভারে বড় পরীক্ষা দিতে হয়েছে। প্রথম দুই বলে চার হজম করে মুহূর্তেই খলনায়কও হতে বসেছিলেন। তবে শেষ চার বলে রংপুরকে সুবিধা করতে দেননি। আলিসের কাছে হেরে গেছে মাশরাফির দল!

    আরও পড়ুন: 
    ওয়ানডে দলে ফিরলেন মোহাম্মদ আমির
    বার্টন অ্যালবিয়নের জালে ম্যান সিটির ৯ গোল