হোম আর্কাইভ আগামী জুলাইয়ে উৎপাদনে আসবে ডরিন পাওয়ার চাঁদপুর বিদ্যুৎকেন্দ্র

আগামী জুলাইয়ে উৎপাদনে আসবে ডরিন পাওয়ার চাঁদপুর বিদ্যুৎকেন্দ্র

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : at 12:23 pm
114
0
ডরিন পাওয়ার চাঁদপুর বিদ্যুৎকেন্দ্র

শেয়ারবাজার ডেস্ক: আগামী বছরের জুলাইয়ের মধ্যে ডরিন পাওয়ার জেনারেশনস অ্যান্ড সিস্টেমস লিমিটেডের চাঁদপুরের বিদ্যুৎকেন্দ্রটি বাণিজ্যিক উৎপাদনে আসবে বলে জানিয়েছেন কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাহজীব আলম সিদ্দিকী। সম্প্রতি শেষ হওয়া রাজধানীর ট্রাস্ট মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত কোম্পানিটির ১১তম বার্ষিক সাধারণ সভায় (এজিএম) তিনি বিনিয়োগকারীদের এ কথা জানান।

এজিএমে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ডরিন পাওয়ারের পরিচালক আনজাবীন আলম সিদ্দিকী, স্বতন্ত্র পরিচালক মাহতাব বিন-আহমেদ ও কোম্পানি সচিব মাসুদুর রহমান ভূঁইয়া।

Spellbit Limited

এজিএমে বিনিয়োগকারীদের উদ্দেশে ডরিন পাওয়ারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাহজীব আলম সিদ্দিকী বলেন, গত হিসাব বছরে কোম্পানি ৬৬৬ কোটি টাকার রেভিনিউ অর্জন করেছে, যা এর আগের বছরের তুলনায় ২৯ দশমিক ৩০ শতাংশ বেশি। তবে আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে যাওয়ার কারণে আমাদের ব্যয় ৩৮ দশমিক ৪৩ শতাংশ বেড়েছে। ফলে কোম্পানির গ্রস মুনাফা প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৩ দশমিক ৯০ শতাংশ। কিন্তু সাধারণ, প্রশাসনিক ও আর্থিক ব্যয় সংকোচনের জন্য বছর শেষে কোম্পানির নিট মুনাফা ১২ দশমিক ৮৫ শতাংশ বেড়ে ৮৩ কোটি ১৭ লাখ টাকায় দাঁড়িয়েছে।

ডরিন পাওয়ার দেশের অন্যতম বেসরকারি বিদ্যুৎ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান উল্লেখ করে তিনি বলেন, ২০০৮ সালের নভেম্বরে বিদ্যুৎ উৎপাদনের মাধ্যমে আমাদের যাত্রা শুরু হয়। এক দশক ধরেই দেশের বিদ্যুৎ খাতে আমরা সফলভাবে ব্যবসা করছি। ২০১০ সালে ৫৫ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন নর্দান ও সাউদার্ন বিদ্যুৎকেন্দ্র দুটির বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু হয়। আশা করছি, আগামী বছরের জুলাইয়ের মধ্যে আমাদের চাঁদপুরের বিদ্যুৎকেন্দ্রটি বাণিজ্যিক উৎপাদনে চলে আসবে।

এজিএমে ৩০ জুন সমাপ্ত ২০১৮ হিসাব বছরের কোম্পানির নিরীক্ষিত আর্থিক বিবরণী ও নিরীক্ষা প্রতিবেদনসহ পরিচালকদের প্রতিবেদন অনুমোদন করেন বিনিয়োগকারীরা। তা ছাড়া গেল হিসাব বছরের জন্য প্রস্তাবিত ২৫ শতাংশ লভ্যাংশ অনুমোদন করেন বিনিয়োগকারীরা। এর মধ্যে সব বিনিয়োগকারীরা ১০ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ পাবেন। আর ১৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ শুধু সাধারণ বিনিয়োগকারীদের জন্য। এর আগে ৩০ জুন সমাপ্ত ২০১৭ হিসাব বছরের জন্য সব বিনিয়োগকারীদের ১০ শতাংশ স্টক এবং শুধু সাধারণ বিনিয়োগকারীদের (পরিচালক বা উদ্যোক্তা ব্যতীত) ১০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছিল ডরিন পাওয়ার।

সর্বশেষ সমাপ্ত ২০১৭-২০১৮ হিসাব বছরে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৭ টাকা ৮৫ পয়সা। ৩০ জুন ২০১৮ এর শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়ায় ৪০ টাকা ৩৪ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি নিট পরিচালন নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) দাঁড়ায় ১০ টাকা ৮৪ পয়সা।

এদিকে চলতি হিসাব বছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর) কোম্পানিটির ইপিএস দাঁড়ায় ২ টাকা ৭১ পয়সা, যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ২ টাকা ৩৫ পয়সা। ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ এর এনএভিপিএস দাঁড়িয়েছে ৪৩ টাকা ৫ পয়সা। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে কোম্পানিটির শেয়ারের সর্বশেষ দর ছিল ৭৮ টাকা ৪০ পয়সা। গত এক বছরে শেয়ারটির সর্বনিম্ন দর ছিল ৭৮ টাকা ২০ পয়সা ও সর্বোচ্চ দর ছিল ১২১ টাকা ৭০ পয়সা ।

কোম্পানিটি ২০১৬ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়ে বর্তমানে ‘এ’ ক্যাটগরিতে অবস্থান করছে।

আরও পড়ুন: আগামীকাল বিওতে বোনাস পাঠাবে ৩ কোম্পানি