হোম অর্থ-বাণিজ্য অনুমোদন পেতে যাচ্ছে আরও একটি নতুন ব্যাংক

অনুমোদন পেতে যাচ্ছে আরও একটি নতুন ব্যাংক

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : at 8:36 pm
173
0
bangladesh bank

ডেস্ক রিপোর্ট: আরও একটি ব্যাংকের অনুমোদন দিতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তবে চুড়ান্ত অনুমোদন পেতে আরও একটি পর্ষদ সভার জন্য অপেক্ষা করতে হবে ব্যাংটিকে। সব জ্বল্পনা-কল্পনার পর মঙ্গলবার রাতে গভর্নর ফজলে কবিরের সভাপতিত্বে বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সভায় ব্যাংকটির কাগজপত্র যাচই-বাছাই শেষে সন্তুষ্ট হয়ে নীতিগত অনুমোদন দেয়া হয়।

পর্ষদে তিনটি ব্যাংকের আবেদনের বিষয়ে এজেন্ডা থাকলেও বাকি দুটি ব্যাংকের শেয়ারহোল্ডার পবিবর্তন ও কর-সংক্রান্ত জটিলতার কারণে ফিরিয়ে দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ব্যাংক দুটি হলো- পিপলস ব্যাংক ও সিটিজেন ব্যাংক।

Spellbit Limited

এর আগে অক্টোবরে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সর্বশেষ পর্ষদ সভায় চূড়ান্ত অনুমোদন পায় পুলিশ সদস্যদের মালিকানায় ‘কমিউনিটি ব্যাংক অব বাংলাদেশ’। ওই সভায় এজেন্ডাভুক্ত তিন ব্যাংকের কিছু কাগজপত্রে ত্রুটি থাকায় অনুমোদনের জন্য শর্ত জুড়ে দেয়া হয়। এর মধ্যে শুধুমাত্র বেঙ্গল ব্যাংকের শর্ত পূরণ করতে পেরেছে। বাকী পিপলস ব্যাংক ও সিটিজেন ব্যাংক শর্তগুলো পূরণ না হওয়ায় গতকালের পর্ষদ সভায় ব্যাংক তিনটির চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হয়নি।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. সিরাজুল ইসলাম। তিনি বলেন, বেঙ্গল ব্যাংকের ব্যাপারে পর্ষদ সভার সব সদস্যই অনুমোদনের ব্যাপারে একমত হয়েছেন। তবে চূড়ান্ত অনুমোদন পেতে ব্যাংটিকে আগামী পর্ষদ সভা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। আর পিপলস ব্যাংক ও সিটিজেন ব্যাংকের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবে আগামী বোর্ড। আগামী বোর্ড সভায় ল্যাটার অব ইনটেন্ট (এলওআই) পেতে পারে বলেও জানান তিনি।

বেঙ্গল ব্যাংকের প্রধান উদ্যোক্তা হলেন বেঙ্গল গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান মো. জসিম উদ্দিন। দেশে তাদের প্লাস্টিক শিল্পসহ বিভিন্ন ব্যবসা রয়েছে। তিনি আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য মোরশেদ আলমের ভাই।

দ্য সিটিজেন ব্যাংকের মালিক হলেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের মা জাহানারা হক। সিটিজেন ব্যাংকের প্রস্তাবে কিছু ঘাটতি রয়েছে। সেগুলা ঠিকঠাক করে উপস্থাপন করতে নির্দেশনা দেয়া হয় আগের বোর্ড সভায়।

সিরাজুল ইসলাম বলেন, এই ব্যাংকের দুইজন পরিচালকের জাতীয় রাজস্ব (বোর্ড) কর বকেয়া রয়েছে। এনবিআর থেকে কর পরিশোধের সনদপত্র জমা দেওয়ার পর সিদ্ধান্ত নিবে পর্ষদ।

পিপলস ব্যাংকের উদ্যোক্ত চট্টগ্রামের সন্দ্বীপের বাসিন্দা যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের নেতা এম এ কাশেম। এটির বিষয়ে তিনি বলেন, এই ব্যাংকের দুইজন নতুন পরিচালকের নাম দেয়া হয়েছে। তাদের বিষয়ে খোজ-খবর নিবে বাংলাদেশ ব্যাংক। তার পর অনুমোদনের জন্য পর্ষদে উঠবে। সব কিছু ঠিক থাকলে পর্ষদ তার অনুমোদন দিবে।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন। পর্ষদের অন্য সদস্যরা হলেন— জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলাম, অর্থ সচিব আব্দুর রউফ তালুকদার, বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর এস এম মনিরুজ্জামান, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজের (বিআইডিএস) গবেষণা পরিচালক ড. রুশিদান ইসলাম রহমান, ইসলাম আফতাব কামরুল অ্যান্ড কোং চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টসের এ কে এম আফতাব উল ইসলাম এফসিএ এবং বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির সাধারণ সম্পাদক ড. জামালউদ্দিন আহমেদ।

গত ২৫ নভেম্বর বাংলাদেশ ব্যাংকের পূর্বনির্ধারিত বোর্ড সভা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও একজন পর্ষদ সদস্য দেশের বাইরে থাকায় তা স্থগিত হয়। ওই সভায়ও তিনটি ব্যাংকের অনুমোদনের বিষয়টি এজেন্ডাভুক্ত ছিল।

আরও পড়ুন: আগামীকাল ৯ কোম্পানির এজিএম