হোম আর্কাইভ ঋণখেলাপি হওয়ায় ৪১ প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল

ঋণখেলাপি হওয়ায় ৪১ প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : at 10:33 am
63
0
সিআইবি

কর্পোরেট সংবাদ ডেস্ক: আসন্ন একাদশ জাতীয় নির্বাচনের ঋণখেলাপি হওয়ায় ৪১ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র আটকে দিয়েছে ক্রেডিট ইনফরমেশন ব্যুরো (সিআইবি)। কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, ঋণখেলাপির অভিযোগে ৪১ জন প্রার্থীর মনোনয়ন পত্র বাতিল করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ক্রেডিট ইনফরমেশন ব্যুরো (সিআইবি)। মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ের সময় সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তারা প্রার্থী তালিকা থেকে তাদের বাদ দেন।

সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে ঋণখেলাপি প্রার্থীদের চিহ্নিত করতে বিশেষ সিআইবি সেল গঠন করে বাংলাদেশ ব্যাংক। ওই সেল ২৯ নভেম্বর থেকে প্রার্থীদের ঋণসংক্রান্ত তথ্য যাচাই শুরু করে। নির্বাচন কমিশন থেকে পাঠানো তালিকা যাচাই-বাছাই করে ৪১ জন খেলাপিকে শনাক্ত করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

Spellbit Limited

ঋন খেলাপির দায়ে বাদ পরেছেন যারা:
ঢাকা : ঢাকা-৪ আসনে বিকল্পধারার কবির হোসেন (ব্র্যাক ব্যাংকে ঋণখেলাপি), স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল মালেক (ঋণ-সংক্রান্ত তথ্য দেননি, সিটি ব্যাংকে ঋণখেলাপি), স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. নজরুল ইসলাম (সোনালী ব্যাংকে ঋণখেলাপি); ঢাকা-৫ আসনে বিএনপির সেলিম ভূঁইয়া, ঢাকা-৬ আসনে বিএনপির নেতা সাদেক হোসেন খোকার ছেলে প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন, ঢাকা-৭ আসনে বিএনপির নাসিরউদ্দিন পিন্টুর স্ত্রী নাসিমা আক্তার কল্পনার প্রার্থিতা বাতিল হয়।

ঢাকা-৯ আসনে বাদ পড়েছেন বিএনপির আফরোজা আব্বাস, ঢাকা-১০ আসনে গণফোরামের খন্দকার ফরিদুল আলম; ঢাকা-১৪ আসনে বিএনপির সৈয়দ আবু বকর সিদ্দিক ও জাকের পার্টির কায়সার হামিদ ও জাকির হোসেন; ঢাকা-১৭ আসনে বিএনএফের প্রতিষ্ঠাতা নাজমুল হুদা, ঢাকা-২০ আসনে বিএনপির সুলতানা আহমেদ বাদ পড়েছেন।

চট্টগ্রাম : সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর ভাই গিয়াস উদ্দিন কাদের চৌধুরীর, চট্টগ্রাম-৪ (সীতাকুন্ড-কাট্টলী) আসনে আসলাম চৌধুরীর, চট্টগ্রাম-৫ (হাটহাজারী) আসনে মীর মো. হেলাল উদ্দিনের, চট্টগ্রাম-৬ (রাউজান) আসনে বিএনপি নেতা গিয়াস উদ্দিন কাদের চৌধুরীর ছেলে সামির কাদের চৌধুরী, চট্টগ্রাম-৮ (চান্দগাও-বোয়ালখালী) আসনে এম মোরশেদ খানের মনোনয়ন বাতিল হয়েছে। এ ছাড়াও টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) ও টাঙ্গাইল-৮ (সখীপুর-বাসাইল) আসনে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি আবদুল কাদের সিদ্দিকীর, টাঙ্গাইল-১ (ধনবাড়ী-মধুপুর) আসনে বিএনপির ফকির মাহাবুব আনাম স্বপন ও টাঙ্গাইল-৬ (নাগরপুর-দেলদুয়ার) আসনে বিএনপির নুর মোহাম্মদ খানের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়। বগুড়া-১ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী টিপু সুলতান, বগুড়া-৫ আসনে বিকল্পধারার মাহাবুব আলীর প্রার্থিতা বাতিল করা হয়েছে।

পটুয়াখালী-১ আসনে জাতীয় পার্টির মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার, পটুয়াখালী-৩ আসনে বিএনপির শাহজাহান খান, ভোলা-১ আসনে বিএনপির গোলাম নবী আলমগীরের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়।
হবিগঞ্জ-১ আসনে গণফোরাম মনোনীত প্রার্থী সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়ার ছেলে রেজা কিবরিয়ার, কুষ্টিয়া-১ (দৌলতপুর) আসনে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদের (বাদল গ্রুপ) রেজাউল হকের, কুষ্টিয়া-৪ (কুমারখালী-খোকসা) আসনে ন্যাশনাল পিপলস পার্টির মেহেদী হাসানের, জাকের পার্টির তসির উদ্দিনের ও সমাজতান্ত্রিক দল জাসদের রোকনুজ্জামান রোকনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়।

সিআইবি রিপোর্ট অনুযায়ী লক্ষ্মীপুর-১ (রামগঞ্জ) আসনে লায়ন এম আউয়াল (জাকের পার্টি), একই আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী মাহবুব আলম; ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল-আশুগঞ্জ) আসনে বিএনপির আখতার হোসেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪ (কসবা-আখাউড়া) আসনে ন্যাশনাল পিপলস পার্টির দেলোয়ার হোসেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ (নবীনগর) আসনে বিএনপির কাজী নাজমুল হোসেন, মৌলভীবাজার-২ (কুলাউড়া) আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী মহিবুল কাদির চৌধুরী, ময়মনসিংহ-২ (ফুলপুর-তারাকান্দা) আসনে বিএনপির আবুল বাশার আকন্দ প্রার্থিতা থেকে বাদ পড়েন।

বাগেরহাট-১ আসনে জাতীয় পার্টির আহমেদ জোবায়ের, সাতক্ষীরা-১ (তালা-কলারোয়া) আসনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বিশ্বজিৎ সাধু, শেরপুর-১ (সদর) আসনে বিএনপির হযরত আলীর, নাটোর-১ আসনে জাতীয় পার্টির আলাউদ্দিন মেধা, ঝালকাঠি-১ (রাজাপুর-কাঁঠালিয়া) আসনে ইয়াসমিন আক্তার পপির প্রার্থিতা বাতিল হয়েছে। কুড়িগ্রাম-৩ আসনে বিএনপির আব্দুল খালেকের, কিশোরগঞ্জ-২ আসনে বিএনপির মেজর (অব.) আকতারুজ্জামানের মনোনয়ন বাতিল হয়েছে।

আরও পড়ুন: 
কোনো মূল্যসংবেদনশীল তথ্য নেই রূপালী লাইফের
মূল্যসংবেদনশীল তথ্য নেই অ্যাম্বি ফার্মার