Home জাতীয় বাংলাদেশের পাসপোর্ট আরো দুর্বল হয়েছে

    বাংলাদেশের পাসপোর্ট আরো দুর্বল হয়েছে

    Published:October 11, 2018
    PASSPORT


    Published: 10:38:57
    148
    0

    পাসপোর্টের সমাদর ও শক্তিমত্তার বৈশ্বিক সূচকে অবনমন হয়েছে বাংলাদেশের। গত বছর বৈশ্বিক সূচকের ৯৫তম অবস্থানে থাকা বাংলাদেশী পাসপোর্ট এবার পাঁচ ধাপ নিচে নেমেছে। আরো তিনটি দেশের সঙ্গে যৌথভাবে ১০০তম অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশের পাসপোর্ট। হেনলি অ্যান্ড পার্টনারসের সর্বশেষ পাসপোর্ট সূচকে এমন চিত্র উঠে এসেছে।

    নাগরিকত্ব ও রেসিডেন্সিবিষয়ক পরামর্শক প্রতিষ্ঠান হেনলি অ্যান্ড পার্টনারসের সদর দপ্তর যুক্তরাজ্যের লন্ডনে। বিভিন্ন দেশে ২৫টি কার্যালয় রয়েছে প্রতিষ্ঠানটির। রেসিডেন্সি সুবিধার বিনিময়ে বিনিয়োগ আকর্ষণের কর্মসূচি প্রণয়নে বিভিন্ন দেশের সরকারের পরামর্শক হিসেবে কাজ করে হেনলি অ্যান্ড পার্টনারস।

    বিনা ভিসায় বা অন-অ্যারাইভাল ভিসায় ভ্রমণ সুবিধার ভিত্তিতে বিভিন্ন দেশের পাসপোর্টের মূল্যায়ন করে হেনলি অ্যান্ড পার্টনারস। ইন্টারন্যাশনাল এয়ার ট্রান্সপোর্ট অ্যাসোসিয়েশনের (আইএটিএ) তথ্য ব্যবহার করে তৈরি একমাত্র সূচক এটি। ভ্রমণবিষয়ক তথ্যের সবচেয়ে বড় আকর থেকে নেয়া উপাত্তের পাশাপাশি হেনলি অ্যান্ড পার্টনারস নিজস্ব গবেষণার ভিত্তিতে পাসপোর্ট সূচক প্রণয়ন করে।

    প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত বছরের তালিকায় ৩৮টি দেশে ভিসামুক্ত প্রবেশাধিকার নিয়ে বাংলাদেশের পাসপোর্ট ছিল ৯৫তম অবস্থানে। চলতি বছর ৪১টি দেশে এ প্রবেশাধিকার পেলেও তালিকার ১০০তম স্থানে নেমে গেছে বাংলাদেশ। ১০০তম স্থানে বাংলাদেশের সঙ্গে রয়েছে লেবানন, লিবিয়া ও দক্ষিণ সুদান।

    হেনলি অ্যান্ড পার্টনারসের সূচকে সবচেয়ে দুর্বল অবস্থানে রয়েছে আফগানিস্তান ও ইরাক। মাত্র ৩০টি দেশে ভিসামুক্ত প্রবেশাধিকার পাওয়া দেশ দুটি রয়েছে তালিকার ১০৬তম অবস্থানে। এছাড়া ১০৫তম স্থানে সোমালিয়া ও সিরিয়া, ১০৪তম স্থানে পাকিস্তান, ১০৩তম স্থানে ইয়েমেন এবং ১০২তম স্থানে রয়েছে ফিলিস্তিন, সুদান ও ইরিত্রিয়া। পাকিস্তানের পাসপোর্টধারীরা ভিসামুক্ত প্রবেশাধিকার পান ৩৩টি দেশে।

    দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে তালিকায় সবচেয়ে এগিয়ে মালদ্বীপ। ৫৮তম স্থানে রয়েছে দেশটি। ক্ষুদ্র এ দ্বীপরাষ্ট্রটির পাসপোর্টধারীদের ভিসামুক্ত প্রবেশাধিকার রয়েছে বিশ্বের ৮৭টি দেশে। ৬০টি দেশে ভিসা ছাড়াই প্রবেশের অধিকার পান ভারতের নাগরিকরা। দেশটির অবস্থান এ তালিকার ৮১তম অবস্থানে। এছাড়া ৫৫টি দেশে ভিসামুক্ত প্রবেশাধিকার নিয়ে ভুটান তালিকার ৮৬তম, ৪২টি দেশে ভিসামুক্ত প্রবেশাধিকার নিয়ে শ্রীলংকা ৯৯তম ও ৪০টি দেশে ভিসামুক্ত প্রবেশাধিকার নিয়ে নেপাল তালিকার ১০১তম স্থানে রয়েছে।

    চলতি বছর তালিকার শীর্ষে উঠে এসেছে জাপান। দেশটির পাসপোর্ট ব্যবহার করে বিশ্বের ১৯০টি দেশে ভিসামুক্ত প্রবেশাধিকার পাওয়া যায়। গত বছরের তালিকায় জাপানের অবস্থান ছিল পঞ্চম। আর ১৮৯টি দেশে ভিসামুক্ত প্রবেশাধিকার নিয়ে তালিকায় জাপানের পরের স্থানে রয়েছে এশিয়ার আরেকটি দেশ সিঙ্গাপুর। গত বছর তালিকার চতুর্থ অবস্থানে ছিল দেশটি। তৃতীয় স্থানে এশিয়ার দেশ দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে রয়েছে ফ্রান্স ও জার্মানি। এসব দেশের পাসপোর্ট ব্যবহার করে ১৮৮টি দেশে ভিসামুক্ত প্রবেশাধিকার পাওয়া যায়। চতুর্থ স্থানে রয়েছে ডেনমার্ক, ফিনল্যান্ড, ইতালি, স্পেন ও সুইডেন। দেশগুলোর পাসপোর্টে ১৮৭টি দেশে ভিসামুক্ত প্রবেশাধিকার পাওয়া যায়। আর তালিকার পঞ্চম স্থানে যৌথভাবে রয়েছে অস্ট্রিয়া, লুক্সেমবার্গ, নেদারল্যান্ডস, নরওয়ে, পর্তুগাল, যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্র।

    গত বছরের তুলনায় চলতি বছরের তালিকায় সবচেয়ে বেশি এগিয়েছে জর্জিয়া। বিশ্বের ১১২টি দেশে ভিসামুক্ত প্রবেশাধিকার নিয়ে এ বছর তালিকার ৫০তম স্থানে রয়েছে দেশটি। আগের বছরের তুলনায় জর্জিয়ার অবস্থানের উন্নয়ন ঘটেছে ১৮ ধাপ। এছাড়া ১৭ ধাপ করে উন্নয়ন ঘটেছে ইউক্রেন ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের। তালিকায় দেশ দুটির অবস্থান যথাক্রমে ৪১তম ও ২১তম। এছাড়া ১৪ ধাপ উন্নতি হয়েছে চীনের। ৭৪টি দেশে ভিসামুক্ত প্রবেশাধিকার নিয়ে তালিকায় চীনের অবস্থান ৭১তম।

    আরও পড়ুন:

    তফসিল ঘোষণার আগে রাষ্ট্রপতির সাক্ষাত চাইলেন নির্বাচন কমিশন