হোম bd news বিনিয়োগ সুরক্ষায় প্রতি প্রান্তিকে আর্থিক বিবরণী ও মূল্য সংবেদনশীল তথ্য প্রকাশ বাধ্যতামূলক

বিনিয়োগ সুরক্ষায় প্রতি প্রান্তিকে আর্থিক বিবরণী ও মূল্য সংবেদনশীল তথ্য প্রকাশ বাধ্যতামূলক

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : at 5:07 pm
499
0
সিএফও

মো: মিজানুর রহমান, এফসিএস: গত ২০ জুন ২০১৮ আর্থিক প্রতিবেদন প্রস্তুত এবং প্রকাশের উপর নোটিফিকেশন এর গেজেট প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। যেখানে বিস্তারিত ভাবে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে যে, পুঁজিবাজারে তালিকাভূক্ত প্রতিটি কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠানকে কখন কীভাবে কত সময়ের মধ্যে আর্থিক বিবরণী ও মূল্য সংবেদনশীল তথ্য প্রস্তুত এবং প্রকাশ করতে হবে।

বিএসইসি পুঁজিবাজারে তালিকাভূক্ত কোম্পানি সমূহের আর্থিক প্রতিবেদন সর্বস্তরের বিনিয়োগকারীদের জ্ঞতার্থে তথ্যের অবাদ প্রবাহ ও ব্যাপক প্রচার প্রচারণা শেয়ারবাজারে বিনিয়োগকারীদের ফিরে আসার ক্ষেত্রে আস্থার জায়গা তৈরী করেছে। উল্লেখিত নোটিফিকেশনে প্রদত্ত নির্দেশনা পরিপালনে সর্বসাধারণের জ্ঞাতার্থে কত যে ভালো একটি পদক্ষেপ বিএসইসি কর্তৃক নেওয়া হয়েছে তা নোটিফিকেশনের পুরোপুরি বিশ্লেষণে গেলে এবং পর্যালোচনা করলে কারোর-ই বুঝতে বাকি থাকবে না। বিএসই কর্তৃক এ ধরনের পদক্ষেপ ও নির্দেশনা সর্বমহলে খুবই জনপ্রিয়তা পেয়েছে। কিন্তু দেখার বিষয় পুঁজিবাজারে তালিকাভ্ক্তূ কোম্পানির কর্তা ব্যক্তিরা বিএসইসি‘র এই নির্দেশনা সঠিক ভাবে পরিপালন করেন কিনা?

Spellbit Limited

নোটিফিকেশনটি পর্যালোচনা করলে দেখা যায় যে এর ৩ নং অনুচ্ছেদে ১ নং কলামে বলা হয়েছে প্রতিটি কোম্পানি প্রথম, দ্বিতীয়, ও তৃতীয় প্রান্তিকের আর্থিক বিবরণী অনুমোদনের জন্য পরিচালনা পর্ষদের সভা ডাকার তিন কার্যদিবস পূর্বে স্টক একচেঞ্জ এবং বিএসইসিকে পর্ষদ সভার তারিখ এবং সময় সম্পর্কে অভিহিত করবে।

নোটিফিকেশনের ৩(২) এর প্রথম অনুচ্ছেদে বলা আছে পরিচালনা পর্ষদ সভায় প্রথম, দ্বিতীয়, ও তৃতীয় প্রান্তিকের আর্থিক বিবরণী অনুমোদনের সময় একই সভায় কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট অ্যাসেট ভ্যালু (এনএভি), শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) এবং শেয়ার প্রতি নিট অপারেটিং নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) এর ঘোষণা করতে হবে। অর্থাৎ একই সভায় প্রত্যেক প্রান্তিকের আর্থিক বিবরণী এবং তার সাথে মূল্য সংবেদনশীল তথ্য ঘোষণা করতে হবে।

আবার নোটিফিকেশনের ৩(২) এর শেষ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে যে, ঘোষণাকৃত মূল্য সংবেদনশীল তথ্য প্রকাশ করার সময় ঠিক তার পূর্বের বছরের একই সময়ের শেয়ার প্রতি নিট অ্যাসেট ভ্যালু (এনএভি), শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) এবং শেয়ার প্রতি নিট অপারেটিং নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) এর সাথে পাশাপাশি তুলনা করে মূল্য সংবেদনশীল তথ্য আকারে প্রকাশ করতে হবে।

যদি কোন কোম্পানি প্রত্যেক প্রান্তিকের আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশের সময় ঐ কোম্পানির তুলনামূলক শেয়ার প্রতি নিট অ্যাসেট ভ্যালু (এনএভি), শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) এবং শেয়ার প্রতি নিট অপারেটিং নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) প্রকাশ না করে তাহলে বিএসইসি এর প্রদত্ত নির্দেশনা পরিপালনে কোম্পানিটি ব্যর্থ হয়েছে বলে গণ্য হবে। সুতরাং পুঁজিবাজারে তালিকাভূক্ত কোম্পানি সমূহের আর্থিক প্রতিবেদন প্রস্তুত এবং প্রকাশের পূর্বে কোম্পানির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বিএসইসি এর নোটিফিকেশনটি ভালো ভাবে পড়ে বুঝতে হবে এবং সেই মোতাবেক কাজ করতে হবে।

নোটিফিকেশনের অনুচ্ছেদ ৪ এ বলা হয়েছে, পুঁজিবাজারে তালিকাভূক্ত প্রতিটি কোম্পানিকে (জীবন বীমা কোম্পানি ব্যতিত) প্রথম প্রান্তিক শেষ হওয়ার পরবর্তী ৪৫ দিনের মধ্যে এবং দ্বিতীয় ও তৃতীয় প্রান্তিক শেষ হওয়ার পরবর্তী এক মাসের মধ্যে তা প্রকাশ করতে হবে। যা স্টক একচেঞ্জ ও বিএসইসি কে অভিহিত করতে হবে এবং কমপক্ষে একটি বাংলা, একটি ইংরেজি দৈনিক পত্রিকা ও একটি অনলাইন নিউজ পোর্র্টালে প্রকাশ করতে হবে। অর্থাৎ প্রতিটি প্রান্তিকে আর্থিক বিবরণী ও তুলনামূলক মূল্য সংবেদনশীল তথ্য আলাদা আলাদা ভাবে প্রকাশ ও প্রচার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে এবং কোম্পানি চাইলে একাধিক পত্রিকায়ও তা প্রকাশ করতে পারবে।

নোটিফিকেশনের ৫ নং অনচ্ছেদে বলা হয়েছে, অর্থবছর শেষ হওয়ার পরবর্তী ১২০ দিনের মধ্যে অডিটের কাজ শেষ করতে হবে। কোম্পানির আর্থিক বিবরণী অডিট শেষ হওয়ার ১৪ দিনের মধ্যে অর্থাৎ ১২০ দিন পরবর্তী ১৪ দিনের মধ্যে নিরীক্ষিত আর্থিক বিবরণী স্টক একচেঞ্জ ও বিএসইসি‘তে পাঠাতে হবে এবং এ ক্ষেত্রেও শেয়ার প্রতি নিট অ্যাসেট ভ্যালু (এনএভি), শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) এবং শেয়ার প্রতি নিট অপারেটিং নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) ঘোষণা করতে হবে।

নোটিফিকেশনের ৬ (১) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, আর্থিক বছর শেষ হওয়ার পর যে সভায় বার্ষিক আর্থিক বিবরণী অনুমোদন নেওয়া হবে সেই পর্ষদ সভার ৭দিন পূর্বে স্টক একচেঞ্জ ও বিএসইসি‘কে সভার তারিখ, স্থান ও সময় অভিহিত করতে হবে। একই পর্ষদ সভায় আর্থিক বিবরণী অনুমোদনের পাশাপাশি ঘোষণাকৃত মূল্য সংবেদনশীল তথ্য প্রকাশ করার সময় ঠিক তার পূর্বের বছরের একই সময়ের শেয়ার প্রতি নিট অ্যাসেট ভ্যালু (এনএভি), শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) এবং শেয়ার প্রতি নিট অপারেটিং নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) এর সাথে পাশাপাশি তুলনা করে মূল্য সংবেদনশীল তথ্য আকারে প্রকাশ করতে হবে। কোম্পানির বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) সংক্রান্ত তথ্যের বিষয়েও সিদ্ধান্ত নিতে হবে এবং নিরীক্ষিত আর্থিক বিবরণী এবং বিগত বছরের সাথে তুলনামূলক মূল্য সংবেদনশীল তথ্য কমপক্ষে একটি বাংলা, একটি ইংরেজি দৈনিক পত্রিকা ও একটি অনলাইন নিউজ পোর্র্টালে প্রকাশ করতে হবে।

নোটিফিকেশনের ৮ নং অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, তালিকাভূক্ত প্রতিটি কোম্পানির আর্থিক প্রতিবেদন এবং মূল্য সংবেদনশীল তথ্য কোম্পানির ওয়েবসাইটেও প্রকাশ করতে হবে।

নোটিফিকেশনের ৯ নং অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, তালিকাভূক্ত প্রতিটি কোম্পানি তার বার্ষিক প্রতিবেদন, এজিএমের কমপক্ষে ১৪ দিন পূর্বে কোম্পানির ওয়েবসাইটে দিবে, স্টক একচেঞ্জ ও বিএসইসি‘কে অভিহিত করবে এবং প্রত্যেক বিনিয়োগকারীর ইমেইলে বার্ষিক প্রতিবেদন পাঠাবে বা পাঠাতে হবে। বিনিয়োগকারীদের বার্ষিক প্রতিবেদন ও এজিএম সম্পর্কে জানানোর জন্য বিশেষ বিজ্ঞপ্তি আকারে কমপক্ষে দুইটি দৈনিক পত্রিকায় (একটি বাংলা, একটি ইংরেজি) এবং অনলাইন নিউজ পোর্টালে প্রকাশ করতে হবে। অর্থাৎ বার্ষিক প্রতিবেদনে অন্তর্ভুক্ত যে সকল ডকুমেন্টারি তথ্য অন্তর্ভুক্ত আছে যেমন-এজিএম এর নোটিস, আর্থিক বিবরণী, পরিচালনা পর্ষদের প্রতিবেদন, নিরীক্ষা প্রতিবেদন, কর্পোরেট গর্ভনেন্স সার্টিফিকেট বা কমপ্লাইন্স অডিট সার্টিফিকেট, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) এবং প্রধান অর্থ কর্মকর্তা (সিএফও) কর্তৃক প্রদত্ত ঘোষণা সহ সকল তথ্যদি কোম্পানির ওয়েবসাইটে, স্টক এক্সচেঞ্জ, বিএসইসি এবং প্রত্যেক বিনিয়োগকারীর ইমেইলে বার্ষিক প্রতিবেদন পাঠাবে বা পাঠাতে হবে। যা বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করতে হবে।

নোটিফিকেশনের সার্বিক পর্যালোচনায় পরিষ্কার বোঝা যায় যে, পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রনকারী কর্তৃপক্ষ বাজারের স্বাভাবিক অবস্থা ধরে রাখার জন্য এবং শেয়ারবাজারের বিনিয়োগকারীরা যেন সার্বিক ভাবে কোম্পানির সকল তথ্য কোন না কোনভাবে পড়তে বা জানতে পারে এবং কোম্পানির আর্থিক অবস্থা সম্পর্কে পুরোপুরি জেনে বুঝে শেয়ারে বিনিয়োগ করতে পারেন তারই বহি:প্রকাশ। সুতরাং যারা পুঁজিাবাজার সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানে সম্পৃক্ত আছেন এবং যারা ভবিৎষ্যতে সম্পৃক্ত হবেন তারা যদি প্রতিটি কোম্পানির আর্থিক প্রতিবেদন প্রস্তুত ও প্রকাশের ক্ষেত্রে বিএসইসি কর্তৃক নির্দেশিত নির্দেশনা যথাযথ ভাবে পরিপালন করেন তাহলে সংশ্লিষ্ট সবাই আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়ার পাশাপাশি পুঁজিবাজার স¦াভাবিক রাখার ক্ষেত্রে গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা সবাই রাখতে পারেন। ইতিমধ্যে বেশকিছু তালিকাভূক্ত কোম্পানি যেমন, ইর্স্টান ব্যাংক লিমিটেড, জিএসপি ফাইন্যান্স কোম্পানি লিমিটেড, উইনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড, মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেড, সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড, ফিনিক্স ফাইন্যান্স এন্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড, ইফাদ অটোস লিমিটেড সহ আরো অনেক কোম্পানি বিএসইসি‘র এই নির্দেশনা মোতাবেক প্রতি কোয়াটারে আর্থিক বিবরণী ও মূল্য সংবেদনশীল তথ্য প্রকাশ করছে কিন্তু এর সংখ্যা খুবই নগণ্য। পুঁজিবাজারে তালিকাভূক্ত সকল কোম্পানিকেই শেয়ারবাজার স্বাভাবিক রাখার স্বার্থে ও শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ সুরক্ষায় নোটিফিকেশনের নির্দেশিত নির্দেশনা পরিপাালন করা উচিৎ।

এখানে লক্ষনীয় যে, বিএসইসি‘র নির্দেশনাটি সময় উপযোগী এবং যতার্থ হলেও নির্দেশনাটির প্রচার প্রচারণায় তাদের পক্ষ থেকে তেমন কোন পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। পাশাপাশি মিডিয়া, ইনস্টিটিউট অব চাটাড একাউন্ট্যান্টস অব বাংলাদেশ (আইসিএবি), ইনস্টিটিউট অব কস্ট এন্ড ম্যানেজমেন্ট একাউন্ট্যান্টস অব বাংলাদেশ (আইসিএমএবি), ইনস্টিটিউট অব চাটার্ড সেক্রেটারিজ অব বাংলাদেশ (আইসিএসবি), শেয়ার ট্রেডিং হাউজ ও স্টক এক্সচেঞ্জ কেউ-ই তাদের পক্ষ থেকে এই নোটিফিকেশনের বিষয়ে ওয়ার্কশপ-সেমিনার করেনি এবং মিডিয়ায় প্রচার প্রচারণা যেভাবে হওয়া প্রয়োজন ছিল সেভাবে হয়নি। ফলে বিএসইসি‘র এই নির্দেশনাটি বাস্তবায়ন কার্যত¦ হুমকির মুখে পড়ছে। ফলে বিএসইসি‘র নোটিফিকেশন ও নির্দেশনা প্রচার প্রচারণার বিষয়টি কীভাবে বাড়ানো যায় সে বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সকল কর্তৃপক্ষ, বিএসইসি, শেয়ার ট্রেডিং হাউজ, পেশাজীবী সংগঠন, যেমন; আইসিএবি, আইসিএমএবি, আইসিএসবি, ডিএসই, সিএসই ও পাবলিক লিমিটেড কোম্পানিজ এসোসিয়েশন কে এই বিষয়ে সেমিনার-ওয়ার্কশপ করতে হবে এবং মিডিয়াকে প্রচার প্রচারণায় ভুমিকা রাখতে হবে, তাহলে কেবল নির্দেশনাটির যতার্থ মূল্যায়ন ও বাস্তবায়ন সম্ভব হবে।

বিএসইসি‘র নোটিফিকেশনটি জানতে ক্লিক করুন

আরও পড়ুন:

যোগ্যতা নির্ধারণ ছাড়াই সিএফও এবং কোম্পানি সেক্রেটারি নিয়োগ বাধ্যতামূলক

বিএসইসি চেয়ারম্যানের সাথে আইসিএসবি প্রতিনিধি দলের সৌজন্য সাক্ষাত